চীনাদের সাথে হাতাহাতি লড়াইয়ে কর্নেলসহ ৩ ভারতীয় সৈন্য নিহত

150

শেখনিউজ রিপোর্টঃ লাদাখের গলওয়ান উপত্যাকায় চীনা সেনাদের হামলায় ভারতীয় এক কর্নেল এবং দুই জওয়ান নিহত হয়েছে। ভারতীয় সূত্রের খবর, সংঘর্ষে গোলাগুলি চলেনি। পাথর এবং রড নিয়ে মারামারিতে এ মৃত্যু হয়েছে বলে ভারতীয় সেনাসূত্রের খবর। ৪৫ বছর পরে এই প্রথম চীনা সেনাবাহিনীর হামলায় ভারতীয় সেনা জওয়ান নিহত হলো।

ঘটনার পরেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে পরিস্থিতি সম্পর্কে অবহিত করা হয়। প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিংহ, বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর এবং চিফ অফ ডিফেন্স স্টাফ (সিডিএস) জেনারেল বিপিন রাওয়ত দুপুরে স্থল, নৌ ও এয়ার প্রধানদের সঙ্গে বৈঠকে পরিস্থিতি পর্যালোচনা করেন।

ভারতীয় সংবাদ মোতাবেক গতকালই দু’পক্ষের ব্রিগেডিয়ার পর্যায়ের বৈঠক শুরু হয়েছিল। তার পরেই চীনের হামলা। ভারতীয় পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘‘গলওয়ান উপত্যকায় উত্তেজনা কমানোর চেষ্টা চলাকালীনই গতকাল রাতে হঠাৎ সংঘর্ষ বাধে। তাতেই ভারতীয় সেনার এক অফিসার এবং দুই জওয়ানের মৃত্যু হয়েছে। দু’পক্ষের উচ্চপর্যায়ের অফিসারেরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বৈঠক করছেন।’’ চীনের সেনা অফিসারদের সঙ্গে বৈঠকে রয়েছেন ৩ নম্বর পদাতিক ডিভিশনের মেজর জেনারেল অভিজিৎ বাপত। তবে ঠিক কী কারণে রাতের অন্ধকারে দু’পক্ষের সংঘর্ষ শুরু হল, তা নিয়ে কিছু বলা হয়নি সেনা বা প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের তরফে।

‘আজতক’ হিন্দি টিভি চ্যানেলের ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, ওই ঘটনার পরে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতি প্রকাশ্যে এসেছে। বেইজিং ভারতের বিরুদ্ধে অনুপ্রবেশের অভিযোগ করেছে। আন্তর্জাতিক বার্তা সংস্থা এএফপিকে উদ্ধৃত করে ‘আজতক’ জানিয়েছে, বেইজিং অভিযোগ করেছে যে ভারতীয় সেনারা সীমান্ত পেরিয়ে চীনা সেনাদের উপরে আক্রমণ করেছিল। চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে এ রকম পরিস্থিতিতে ভারত যেন একতরফাভাবে পদক্ষেপ গ্রহণ না করে।

চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের একজন মুখপাত্র ঝাও লিজিয়ানকে উদ্ধৃত করে জানানো হয়েছে, চীনের অভিযোগ সোমবার ভারত দুই দফা সীমান্ত অতিক্রম করে “চীনের সৈন্যদের উস্কানি দিয়েছে এবং তাদের ওপর হামলা চালিয়েছে, যার ফলস্বরুপ এই প্রাণঘাতী সংঘর্ষ ঘটেছে।”

গত প্রায় দেড় মাস ধরেই লাদাখের ভারত ও চীনের মধ্যে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় (লাইন অব অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোল বা এলএসি) দুপক্ষের মধ্যে তীব্র উত্তেজনা চলছে, দুই দেশের সেনাবাহিনীও মুখোমুখি অবস্থান নিয়েছে।

কোনও কোনও সামরিক বিশ্লেষক জানিয়েছেন, একটা পর্যায়ে চীনা সৈন্যরা এলএসি অতিক্রম করে ভারতীয় ভূখন্ডের ভেতর প্রায় চল্লিশ থেকে ষাট কিলোমিটার ঢুকে পড়েছিল – যদিও আনুষ্ঠানিক পর্যায়ে ভারত এ ব্যাপারে এখনও কোনও মন্তব্য করেনি।

ডোকালাম অঞ্চলকে কেন্দ্র করে ভারত আর চীনের মধ্যে যখন উত্তেজনা তৈরি হয়েছে, তখন বারে বারেই উঠে আসছে ১৯৬২ সালের চীন-ভারত যুদ্ধের প্রসঙ্গ। ওই যুদ্ধে ভারত শোচনীয়ভাবে পরাস্ত হয়েছিল। চীনের সরকারি গণমাধ্যম ক্রমাগত মনে করিয়ে দিচ্ছে ৬২-র সেই যুদ্ধের কথা।

Facebook Comments

Hits: 64

SHARE