গোপালগঞ্জে প্রশান্ত বাড়ৈর নির্দেশে নারী স্বাস্থ্যকর্মীর অমানবিক কোয়ারেন্টাইন!

80

ডেস্ক রিপোর্টঃ গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় এক আওয়ামী লীগ নেতা জনৈক প্রশান্ত বাড়ৈর নির্দেশে এক নারী স্বাস্থ্যকর্মীকে (২১) নির্জন পুকুর পাড়ে একটি ঝুপড়ি ঘরে কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে বলে অভিযোগ প্রকাশিত হয়েছে। সেখানে ওই স্বাস্থ্যকর্মী রোদ-বৃষ্টিতে অবর্ণনীয় কষ্টের মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন। 

রাজধানী ঢাকার ইমপালস হাসপাতালের চিকিৎসকের অ্যাটেনডেন্ট পদে চাকরি করেন ওই নারী। করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে হাসপাতাল বন্ধ হয়ে যায়। গত মঙ্গলবার (২১ এপ্রিল) ওই স্বাস্থ্যকর্মী কোটালীপাড়া উপজেলার লখন্ডা গ্রামের নিজ বাড়িতে আসেন। বাড়িতে আসার পর স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা প্রশান্ত বাড়ৈর নির্দেশে ওই নারী স্বাস্থ্যকর্মীকে এলাকাবাসী একটি নির্জনস্থানে পুকুরপাড়ে তালপাতা দিয়ে তৈরি ঝুপড়ি ঘরে কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়। 

গত ১ সপ্তাহ ধরে রোদ-বৃষ্টিতে অবর্ণনীয় কষ্টের মধ্যেও সেখানেই অবস্থান করছেন তিনি। বিষয়টি সামাজিক যোগযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হওয়ার উপজেলাব্যাপী সমালোচনার ঝড় ওঠে। 

ওই স্বাস্থ্য কর্মী জানান, করোনাভাইরাস সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় কর্তৃপক্ষ হাসাপাতাল বন্ধ করে তাকে ছুটি দেয়। ছুটিতে তিনি বাড়ি ফিরলে এলাকায় এ খবর ছড়িয়ে পড়ে। আওয়ামী লীগ নেতার নির্দেশে স্থানীয়রা তার বাড়ির প্রায় আধা কিলোমিটার দূরের ওই নির্জন স্থানে পুকুর পাড়ে তালপাতার তৈরি ঘরে কোয়ারেন্টিনে রাখেন।  

ভুক্তভোগী ওই নারী স্বাস্থ্যকর্মী বলেন, “আজ প্রায় এক সপ্তাহ ধরে আমি এখানে রোদে পুড়ে বৃষ্টিতে ভিজে মানবেতর জীবন যাপন করছি। খুব কষ্ট হচ্ছে। একজন স্বাস্থ্যকর্মী হিসেবে আমি অনেক মানুষকে স্বাস্থ্যসেবা দিয়েছি। আর আজ এখানে থেকে আমার স্বাস্থ্য হুমকির মুখে পড়েছে। মানুষ যে এতোটা নিষ্ঠুর হতে পারে তা আমার আগে জানাছিল না “

কান্নাজড়িত কণ্ঠে ওই নারী স্বাস্থ্যকর্মীর মা বলেন, আমার স্বামী নেই। আমার এই মেয়েটাই  একমাত্র উপার্জনক্ষম। তার আয়ে আমার সংসার চলে। আমার মেয়ের এখনো বিয়ে হয়নি। তাকে এভাবে একটি পুকুরের মধ্যে ঝুপড়ি ঘরে রাখা হয়েছে। আমার মেয়েটির যদি কিছু হয়ে যায় তাহলে এর দায় কে নেবে? এলাকার আওয়ামী লীগ নেতা প্রশান্ত বাড়ৈ চাপ সৃষ্টি করে আমার মেয়েটিকে এখানে রেখেছে। তাকে ওই অবস্থা থেকে মুক্ত করতে আমি প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি। 

ঢাকা ট্রিবিউন নামের একটি নিউজপোর্টালে এ সংবাদটি প্রকাশ করা হয়।

Facebook Comments

Hits: 30

SHARE