বিভিন্ন প্রস্তাবিত আইন নিয়ে ইন্দোনেশিয়ায় তুলকালাম

37

বিশ্বের সবচেয়ে বড় মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ ইন্দোনেশিয়ায় বিয়ের আগে যৌনতা নিষিদ্ধ করে একটি আইনের খসড়া তৈরি করেছে দেশটির সরকার৷ এর বিরুদ্ধে দেশটির বিভিন্ন শহরে ব্যাপক আন্দোলন শুরু হয়েছে, সংঘর্ষে আহত হয়েছেন অনেকে৷

ইন্দোনেশিয়ার আচেহ প্রদেশে শরিয়া আইন চালু থাকলেও অন্যান্য অঞ্চলে স্বাধীনতার পর থেকেই চালু রয়েছে সেক্যুলার আইন৷ তবে বেশ কিছুদিন ধরেই দেশটির কট্টর ইসলামি দলগুলোর চাপের মুখে রয়েছে সরকার৷ ইসলামি দলগুলো চায় দেশটির আইনে ধর্মের প্রভাব বাড়াতে৷

নতুন আইনের খসড়ায় বলা হয়েছে, বিবাহবহির্ভূত যৌন সম্পর্ক পরস্পরের সম্মতিতে হলেও সেটা দণ্ডনীয় হবে৷ এজন্য দেয়া হতে পারে এক বছরের কারাদণ্ড৷ এছাড়া বিয়ে না করে একসঙ্গে বসবাসের অপরাধেও দেয়া যাবে ছয় মাসের জেল৷

মেডিকেল ইমার্জেন্সি, অর্থাৎ শারীরিক অসুস্থতার কারণে বাধ্য না হলে বা ধর্ষণের ফলে গর্ভধারণ না করলে গর্ভপাত নিষিদ্ধ করার প্রস্তাব করা হয়েছে প্রস্তাবিত আইনে৷

আন্দোলন চলছে আরেকটি আইন নিয়েও৷ প্রস্তাবিত আইনটিকে দেশটির দুর্নীতি প্রতিরোধ সংস্থাকে ইচ্ছে করে দুর্বল করার প্রচেষ্টা হিসেবে দেখছেন বিক্ষোভকারীরা৷

প্রেসিডেন্ট, ভাইস প্রেসিডেন্ট, ধর্ম, রাষ্ট্রীয় সংস্থা এবং জাতীয় পতাকা ও জাতীয় সংগীতের মতো প্রতীককে অসম্মান করা যাবে না৷ কটূক্তি বা অপমানসূচক যেকোনো কর্মকাণ্ডের জন্যও রাখা হয়েছে শাস্তির বিধান৷

বিক্ষোভকারীরা বলছেন, এইসব আইন পাস হলে ব্যক্তিস্বাধীনতা ক্ষুণ্ণ হবে৷ যৌনতার অধিকার নিয়েও সোচ্চার হয়েছেন বিক্ষোভকারীরা৷ তাঁরা বলছেন, নাগরিকদের যৌন সম্পর্ক কেমন হবে, তা রাষ্ট্র বা সরকার নির্ধারণ করে দিতে পারে না৷ এই আইন পাস হলে নাগরিকদের ওপর খবরদারি করা আরো সহজ হবে বলেও আশংকা তাঁদের৷

দেশটির আইনপ্রণেতারা এ মাসের শেষেই আইন পাস করতে চেয়েছিলেন৷ কিন্তু তীব্র আন্দোলনের ফলে আদৌ পাস হবে কিনা, তা নিয়ে সংশয় তৈরি হয়েছে৷ মঙ্গলবার এ নিয়ে পার্লামেন্টে ভোট হওয়ার কথা থাকলেও প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদো তা পিছিয়ে দেন৷ কিন্তু বুধবারও পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে অন্তত ৩০০ বিক্ষোভকারী আহত হয়েছেন৷

রাজধানাী জাকার্তা ছাড়াও ইয়োগাকার্তা এবং পশ্চিম জাভার বিভিন্ন শহরেও আন্দোলন ছড়িয়ে পড়েছে৷ বিভিন্ন শহরে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে যোগ দিয়েছেন সাধারণ মানুষও৷ শুক্রবার পরবর্তী ভোটের দিন নির্ধারিত হয়েছে৷ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে শুধু জাকার্তাতেই মোতায়েন করা হয়েছে পাঁচ হাজার পুলিশ৷

বিপদে পর্যটকরা

বিশ্বের পর্যটকদের কাছে আকর্ষণীয় এক গন্তব্য ইন্দোনেশিয়ার বালি ও অন্যান্য দ্বীপ৷ কিন্তু এমন আইন পাস হলে পর্যটকদের নিরাপত্তা নিয়েও সংশয় তৈরি হয়েছে৷ এরই মধ্যে অস্ট্রেলিয়ার দূতাবাস দেশটির নাগরিকদের জন্য ভ্রমণ-সতর্কতা জারি করেছে৷ অবিবাহিত যুগল ও সমকামী পর্যটকদের জন্য বিশেষ সমস্যা হতে পারে বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করেছে দেশটি৷ নতুন আইনে এমন পর্যটকদেরও জেলে যেতে হতে পারে৷

DW

Facebook Comments

Hits: 8

SHARE