যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবর্তী নির্বাচন সম্পর্কে যা জানা দরকার

27

মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্রে মধ্যবর্তী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে৷ ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট হিসেবে কেমন দেশ পরিচালনা করেছেন তার মূল্যায়ন জানা যাবে এই নির্বাচনে৷ ইতিহাস বলছে, মধ্যবর্তী নির্বাচনগুলোতে প্রেসিডেন্টের দল সাধারণত ভালো করতে পারে না৷ বেসরকারি সংস্থা ‘দ্য অ্যামেরিকান প্রেসিডেন্সি প্রজেক্ট’-এর তথ্য বলছে, গত ২১টি মধ্যবর্তী নির্বাচনে প্রেসিডেন্টের দল ‘হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভস’-এ মাত্র তিনবার আসন বাড়াতে পেরেছে৷ আর সেনেটে পেরেছে মাত্র পাঁচবার৷

সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার আমলে হওয়া দুই মধ্যবর্তী নির্বাচনে দুইবারই ডেমোক্র্যাটিক দল হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভস ও সেনেটে আসন হারিয়েছে৷ উল্লেখ্য, হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভস হচ্ছে মার্কিন সংসদ কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ আর সেনেট উচ্চকক্ষ৷ মঙ্গলবারের নির্বাচনে ‘হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভস’-এর সব আসনে (৪৩৫) নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে৷ বর্তমান হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভসে ট্রাম্পের দল রিপাবলিকান পার্টির ২৩৫ আসনে প্রতিনিধিত্ব আছে৷ ডেমোক্র্যাট দলের আছে ১৯৩টিতে৷ কংগ্রেসের এই নিম্নকক্ষের নিয়ন্ত্রণ পেতে কোনো দলকে ২১৮টি আসনে জিততে হয়৷

কংগ্রেসের উচ্চকক্ষ সেনেটের আসন সংখ্যা ১০০টি৷ বর্তমান সেনেটে রিপাবলিকানদের আসন সংখ্যা ৫১টি৷ আর ডেমোক্র্যাটদের ৪৭টি৷ বাকি দুজন স্বতন্ত্র প্রার্থী৷ অর্থাৎ দেখা যাচ্ছে, মার্কিন কংগ্রেসের দুই কক্ষেই ডোনাল্ড ট্রাম্পের সংখ্যাগরিষ্ঠতা আছে৷ সেই কারণে তিনি একের পর এক বিল সহজে পাস করিয়ে নিতে পেরেছেন৷

মঙ্গলবারের নির্বাচনের পর হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভসের নিয়ন্ত্রণ ডেমোক্র্যাটদের পক্ষে আসতে পারে বলে দুই দলেরই বিশ্লেষকরা মনে করছেন৷ আর সেনেটে রিপাবলিকানদের আসন আরো বাড়বে বলে তাঁদের ধারণা৷ কারণ, ১০০ আসনের সেনেটের মাত্র ৩৫টিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে মঙ্গলবার৷ এর মধ্যে ২৪টি আসনই ডেমোক্র্যাটদের দখলে আছে৷ ফলে রিপাবলিকানদের দখলে থাকা মাত্র নয়টি আসনে মঙ্গলবার ভোট হবে৷ সেক্ষেত্রে রিপাবলিকানরা ডেমোক্র্যাটদের কিছু আসন এবার বাগিয়ে নিতে পারে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা৷

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পও মনে করছেন সেনেটে রিপাবলিকানরা নিয়ন্ত্রণ ধরে রাখতে পারলে সেটিকেই তিনি বিজয় হিসেবে ধরে নেবেন৷

ট্রাম্পের ইম্পিচমেন্ট?

মার্কিন প্রেসিডেন্টকে ক্ষমতাচ্যুত করতে হলে ৬৭ জন সেনেট সদস্যের ভোট প্রয়োজন হয়৷ মঙ্গলবারের নির্বাচনের পর ট্রাম্পকে সরিয়ে দেয়ার মতো সেনেটে ঐ সংখ্যক সদস্য থাকবে বলে কেউ মনে করছেন না৷

তবে কংগ্রেসের দুই কক্ষের মধ্যে ডেমোক্র্যাটরা যদি অন্তত একটির নিয়ন্ত্রণ পায়, তাহলে পরবর্তী দুই বছরে ইচ্ছেমতো নীতি বাস্তবায়ন করতে ট্রাম্পকে বেগ পেতে হবে৷ ট্রাম্পের সমর্থক এবং ‘ওমেন ফর ট্রাম্প’-এর নেতা অ্যামি ক্রেমার মনে করছেন, একটি কক্ষের নিয়ন্ত্রণ ডেমোক্র্যাটদের কাছে যাওয়াটা সর্বনাশা হবে৷ ‘‘যদি তারা হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভসের নিয়ন্ত্রণ পায়, তাহলে তিনি (ট্রাম্প) ‘লেম-ডাক’ (অকার্যকর) প্রেসিডেন্ট হয়ে পড়বেন এবং তিনি পুনরায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হতে পারবেন না,” বলে মনে করেন ক্রেমার৷

DW (এপি, এএফপি)

Facebook Comments
SHARE