ডঃ কামালের নেতৃত্বে জাতীয়তাবাদী ও ইসলামীরা কোথায় নিচ্ছেন জাতিকে?

138

শেখ মহিউদ্দিন আহমেদঃ মরহুম শেখ মুজিবুর রহমানকে জাতির পিতা হিসেবে মনে প্রানে বিশ্বাসী ডঃ কামাল হোসেন একজন দামী ও নামী উকিল। কখনো কোন নিঃস্ব মানুষের মামলা বিনে পয়সায় করেছেন বলে শুনিনি। তাকে বর্তমান বাংলাদেশের বিতর্কিত সংবিধানের মুল প্রণেতাদের একজন বলা হয়।  আওয়ামী লীগের হয়ে তিনি রাষ্ট্রপতি নির্বাচনও করেছেন। তিনি বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদীও নন। এমন একজন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের নেতৃত্বে বিএনপি ও জামায়াতে ইসলামীর জোট জাতীয় ঐক্য গড়ে কিভাবে তা আমার মত কম বুদ্ধির মানুষের বুঝতে অসুবিধা হচ্ছে।  ভাবছি তাহলে কি বাংলাদেশের রাজনীতিতে আদর্শিক বিষয়টির অন্তর্ধান ঘটেছে নাকি আদর্শ বলতে এখন আর কোন বিষয় নেই?

বাংলাদেশের আদালতগুলোতে কি হয় সেটা সাধারন মানুষ হাড়ে হাড়ে জানলেও উচ্চ আদালতে বসা এই ডঃ কামাল সাহেবরা কি কিছুই জানেন না? আমার মতে বাংলাদেশে বিচার ব্যবস্থার পচে যাওয়ার পেছনে ডঃ কামাল হোসেনদের মত উকিলদের অবশ্যই দায় রয়েছে। আদালত অবমাননার মত জুজুবুড়ির ভয় দেখিয়ে জাতিকেও তারা মুখ বন্ধ করিয়ে রেখেছেন সব সময় আর তারই সবটুকু ফায়দা পেয়েছে ভারত। সেই ডঃ কামাল হোসেনরা আজ জাতীয় ঐক্য গড়েছেন। জেনারেল জিয়াউর রহমানের বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদী আদর্শের দল বিএনপি এবং ইসলামী আদর্শের দল জামায়াতে ইসলামী তাদের বগি ডঃ কামাল হোসেনের ইঞ্জিনের সাথে লাগিয়েছেন। কিন্তু আমরা উৎসুক হয়ে আছি দেখতে যে এই ইঞ্জিন বগিসহ কোন গন্তব্যে গিয়ে পৌঁছে।দাদাবাবুদের ক্ষমতা নাকি দেশের জনগণ আর সৃষ্টিকর্তার চেয়েও শক্তিশালী; তাদের প্রেসক্রিপশন ছাড়া নাকি ক্ষমতায়ই যাওয়া যাবে না! হায়রে ক্ষমতা!

তবে ডঃ কামাল হোসেন শেখ মুজিবুর রহমানের বিশেষ স্নেহের মানুষ হলেও তিনি বাকশালের সাথে জাননি; ভিন্নমত পোষণ করে সরকারেও শাপথ নেন নাই। এটা কিন্তু আওয়ামী লীগের সাথে তার পার্থক্য নয়; আওয়ামী লীগ যেহেতু বাকশাল নয়; তেমনি ডঃ কামালও বাকশাল নন। আওয়ামী লীগ শেখ মুজিবকে জাতির পিতা হিসেবে প্রতিটি ইঞ্চিতে বসিয়েছে, ডঃ কামাল সেটি মনে প্রানে বিশ্বাস করেন। আওয়ামী লীগ যেমন বাঙ্গালী জাতীয়তায় বিশ্বাস করে ডঃ কামালও তাই করেন। আওয়ামী লীগ ধর্ম নিরপেক্ষতার আদর্শ বিশ্বাস করে ডঃ কামালও তাই। এই আদর্শিক মিলের কারনেই ডঃ কামাল হোসেন জাতীয়তাবাদীদের জন্য কি নিরাপদ? ডঃ কামাল হোসেনদের নিয়ে ক্ষমতায় গেলে জাতীয়তাবাদীরা ও ইসলামী মূল্যবোধের মানুষেরা কি পারবে ডঃ কামাল হোসেনদের নেতৃত্বে তাদের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করতে?

প্রশ্ন এখানেই! প্রশ্ন এই নয় যে যেন তেন ভাবে ক্ষমতায় যাবো। তখন ক্ষমতায় গিয়ে কি আরও ভয়াবহ সমস্যা জাতি পড়বে কিনা সেটা এখনি হিসেব করে দেখতে হবে। হিসেব করতে হবে আসলে জাতি হিসেবে আমরা কি চাই? শুধু ভোটের অধিকার? নাকি নাগরিক স্বাধীনতা ও অধিকার? যা আজকের এই বাংলাদেশে কোনদিন আসেনি। ব এখনি সিদ্ধান্ত নিতে হবে আমরা কি শুধুই পরিবারগুলোর রিপ্লেসমেন্ট চাই নাকি জাতীয় মুক্তি চাই। এর মধ্যেই নিহিত সব প্রশ্ন ও জটিলতার সমাধান। এবারো ভুল হলে স্বাধীনতা কখনই অর্জিত হবে না।

 

Facebook Comments
SHARE