চাঁদে মানুষের বাস শুরু ১০ বছরে

54

ডেস্ক রিপোর্টঃ যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসার সহায়তায় জাপানের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা জাক্সা চাঁদে কলোনি বানানোর ঘোষণা দিয়েছে৷ এক দশকের কাছাকাছি সময়ে এ পরিকল্পনা বাস্তবায়নের পরিকল্পনা বিজ্ঞানীদের

গত বছরের ডিসেম্বরে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এক নির্বাহী আদেশে স্বাক্ষর করেন৷ এর মূল লক্ষ্য, সৌরজগত সম্পর্কে আরো গবেষণা চালাতে চাঁদে আবার মহাকাশচারী পাঠানো৷ বহির্জগতে যাত্রার বিরতিস্থান হিসেবে ব্যবহারের পাশাপাশি চাঁদ থেকে প্রয়োজনীয় খনিজ আহরণ করা যায় কিনা, চলবে সে গবেষণাও৷

২০০৯ সালে জাপানের মহাকাশযান কাগুইয়া চাঁদে গিয়ে ইউরেনিয়াম, থোরিয়াম, পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, সিলিকন, ক্যালসিয়াম, টাইটেনিয়াম ও আয়রনের উপস্থিতি শনাক্ত করে, সংগ্রহ করা হয় কিছু নমুনাও৷ এর ফলে বাণিজ্যিকভাবে খনিজ আহরণের সম্ভাবনাও সৃষ্টি হয়৷

এতদিন পর্যাপ্ত সম্পদের অভাবে মানুষের বসবাসের জন্য চাঁদের পৃষ্ঠকে অনুপযোগীই ভাবা হতো৷

বসতি স্থাপনের পরিকল্পনা

চাঁদে কোন খনিজ কী পরিমাণে উপস্থিত জানতে আরো কিছু মহাকাশ অভিযানে যাওয়ার পরিকল্পনা করছে জাপান এরোস্পেস এক্সপ্লোরেশন এজেন্সি- জাক্সা৷ পর্যবেক্ষকদের ধারণা, ২০১৩ সালে চীনের জেড ব়্যাবিট লোনার রোভারের সাফল্যে উজ্জ্বীবিত হয়েই এই পথে এগোচ্ছে জাপান৷

বিশেষজ্ঞদের ধারণা, চাঁদে উল্লেখযোগ্য পরিমাণে জমাটবাঁধা পানি এবং পর্যাপ্ত লৌহের উপস্থিতি রয়েছে৷ এছাড়া রয়েছে হিলিয়াম-৩ গ্যাসের উপস্থিতি, যা কেবল চাঁদেই পাওয়া যায়৷ এই গ্যাসকে সহজেই নিউক্লিয়ার ফিউশন প্রযুক্তির মাধ্যমে জ্বালানি হিসেবে কাজে লাগানো সম্ভব বলেও মনে করছেন বিজ্ঞানিরা৷

ছরের ডিসেম্বরে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এক নির্বাহী আদেশে স্বাক্ষর করেন৷ এর মূল লক্ষ্য, সৌরজগত সম্পর্কে আরো গবেষণা চালাতে চাঁদে আবার মহাকাশচারী পাঠানো৷ বহির্জগতে যাত্রার বিরতিস্থান হিসেবে ব্যবহারের পাশাপাশি চাঁদ থেকে প্রয়োজনীয় খনিজ আহরণ করা যায় কিনা, চলবে সে গবেষণাও৷

২০০৯ সালে জাপানের মহাকাশযান কাগুইয়া চাঁদে গিয়ে ইউরেনিয়াম, থোরিয়াম, পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, সিলিকন, ক্যালসিয়াম, টাইটেনিয়াম ও আয়রনের উপস্থিতি শনাক্ত করে, সংগ্রহ করা হয় কিছু নমুনাও৷ এর ফলে বাণিজ্যিকভাবে খনিজ আহরণের সম্ভাবনাও সৃষ্টি হয়৷

টোকিও-ভিত্তিক নির্মাণ প্রতিষ্ঠান শিমিজু কর্পের মুখপাত্র হিদেও ইমামুরা জানান, ‘‘আমরা সেই ১৯৮৭ সাল থেকে চাঁদে বসতি স্থাপনের চিন্তা শুরু করেছি৷ আমরা তখন থেকেই বিশ্বাস করি, এমন এক দিন আসবে যখন মানুষ চাঁদে বাস করতে শুরু করবে৷”

ডয়চে ভেলেকে তিনি জানান, এই মুহূর্তে তিনটি লক্ষ্য মাথায় রেখে কাজ করছে তাঁর প্রতিষ্ঠান৷ প্রথমত, চাঁদে লঞ্চ প্যাড এবং সংশ্লিষ্ট অন্যসব অবকাঠামো নির্মাণ করা৷ দ্বিতীয়ত, স্যাটেলাইট থেকে পাওয়া আবহাওয়া ও টেলিকমিউনিকেশন সংক্রান্ত তথ্য সঠিকভাবে কাজে লাগিয়ে চন্দ্রপৃষ্ঠ সম্পর্কে ধারণা পাওয়া৷ তৃতীয়ত, চাঁদের পৃষ্ঠে সঠিকভাবে কাজ করবে এমন নির্মাণপ্রর্যুক্তি ও যন্ত্র নির্মাণ করা৷

গবেষকরা এখন চাঁদের মাটির সাথে চাঁদের বরফগলা পানি মিশিয়ে বিশেষ ধরনের ‘চন্দ্র কংক্রিট’ তৈরির চেষ্টা চালাচ্ছেন৷

বিদ্যুতের চাষ!

শিমিজু প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে অবশ্য আরো একটি প্রস্তাব উত্থাপন করা হয়েছে৷ পৃথিবীর ক্রমবর্ধমান বিদ্যুতের চাহিদা মেটাতে চাঁদকে সৌরবিদ্যুত প্ল্যান্ট হিসেবে কাজে লাগাতে চায় তাঁরা৷ সোলার প্যানেল দিয়ে চাঁদের ৪০০ কিলোমিটার ঘিরে ফেলতে চায় শিমিজু৷ এই প্রক্রিয়ায় উৎপন্ন বিদুৎ সংগ্রহ করা হবে পৃথিবীতে৷ এই পরিকল্পনার নাম দেয়া হয়েছে ‘লুনা রিং’৷

এই লুনা রিংয়ের মাধ্যমে ১৩ হাজার টেরাওয়াটের মতো বিদ্যুৎ উৎপাদন সম্ভব বলে মনে করছেন বিজ্ঞানীরা৷

শিমিজুর ওয়েবসাইটে এক বলা হয়েছে, ‘‘সীমিত সম্পদের ব্যবহারে মিতব্যয়ী হওয়ার চেয়ে কিভাবে অফুরন্ত ক্লিন এনার্জি উৎপাদন করা যায়, দীর্ঘদিন ধরে সে সন্ধান চালিয়ে আসছেন বিজ্ঞানীরা৷ উদ্ভাবনী ভাবনা ও অগ্রসর প্রযুক্তি লুনা রিং, মানুষের এই স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দেয়ার সমবাবনা তৈরি করেছে৷”

জাক্সার সাথে কাজ করছে আরেক প্রতিষ্ঠান- কাজিমা৷ পৃথিবী থেকে নিয়ন্ত্রণ করা যায়, এমন কিছু নির্মাণ যন্ত্র এরই মধ্যে চাঁদে পাঠানোর প্রস্তুতি শুরুর করেছে তাঁরা৷ পৃথিবীতে বেশকিছু নির্মাণকাজে দূরনিয়ন্ত্রিত ট্রাক ও বুলডোজার ব্যবহার করে আসছে প্রতিষ্ঠানটি৷ প্রতিষ্ঠানটির গবেষকদের বিশ্বাস, পৌনে চার লাখ কিলোমিটার দূরেও কাজ করবে তাঁদের এই প্রযুক্তি৷

DW

Facebook Comments
SHARE