খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরীক্ষার রিপোর্টে যা ছিল

12

সাবেক প্রধানমন্ত্রী বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার জন্য গঠিত মেডিক্যাল বোর্ড তাকে উন্নতমানের চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করার পরামর্শ দিয়েছে। রোববার মেডিক্যাল বোর্ডের প্রধান অধ্যাপক ডা. আব্দুল জলিল চৌধুরী প্রতিবেদনটি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যলয়ের (বিএসএমএমইউ) পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আব্দুল্লাহ আল হারুনের কাছে জমা দেন। গত শনিবার পাঁচ সদস্যের মেডিক্যাল বোর্ড নাজিমউদ্দিন রোডে কারাবন্দী বেগম খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেন এবং রোববার সকালে বোর্ডের সদস্যরা আলোচনা শেষে তৈরি করা প্রতিবেদনটি জমা দেন।

উল্লেখ গত শনিবার মেডিক্যাল বোর্ডের সদস্যরা কারাগারে যান বেগম খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করতে। গতকাল রোববার ১২টার দিকে প্রতিবেদনটি জমা দেয়ার পর অধ্যাপক জলিল চৌধুরী বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসায় কী করণীয় তা প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। তার কি কি রোগ রয়েছে এবং কোথায় চিকিৎসা হওয়া দরকার সে বিষয়ে উল্লেখ করা হয়েছে।

চিকিৎসকেরা প্রতিবেদনে বলেছেন, বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা ঝুঁকিপুর্ণ নয়। তবে উন্নত চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পরামর্শ তারা দিয়েছেন। সাংবাদিকদের সাথে কথা বলতে গিয়ে চিকিৎসকেরা বলেন, চিকিৎসকেরা তার অবস্থা পর্যবেক্ষণ করে কিছু চিকিৎসা দিয়েছেন। তার শারীরিক কোনো ঝূঁকি নেই। তবে মেডিক্যাল বোর্ড তাঁকে বিএসএমএমইউ-এ ভর্তির পরামর্শ দিয়েছেন।

‘বেগম খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যের কোনো ঝুঁকি নেই বলছেন। ঝুঁকি যদি না থাকবে তাহলে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করার জন্য মেডিক্যাল বোর্ড পরামর্শ দিল কেন ?’ প্রশ্নের উত্তরে পরিচালক ব্রিগেডিয়ার আব্দুল্লাহ আল হারুন বলেন, এটা একটি বিশ^বিদ্যালয়। এখানে সকল ডিসিপ্লিনের চিকিৎসা হয়। এখানে ভর্তি করা হলে তিনি একটি উন্নতমানের চিকিৎসা পাবেন। এ কারণেই মেডিক্যাল বোর্ড হাসপাতালে ভর্তি করার পরামর্শ দিয়েছেন।’

একই প্রশ্ন মেডিক্যাল বোর্ডের অন্যতম সদস্য অধ্যাপক ডা. আব্দুল জলিল চৌধুরীকে করা হলে তিনি জানান, ‘স্বাস্থ্যের কোনো ঝুঁকি নেই এমন কথা আমরা বলিনি। আমরা বলেছি মৃত্যু ঝুঁকি নেই। তিনি একজন বয়স্ক মানুষ। তার অনেকগুলো রোগ রয়েছে। আথ্রাইটিস এর মধ্যে অন্যতম। তার পায়ে রড লাগানো আছে। বাম হাতে কিছু ধরতে পারেন না। শরীরের বিভিন্ন জয়েন্টে ব্যথা রয়েছে। মেডিক্যাল বোর্ডের পরামর্শে আমরা তাকে হাসপাতালে ভর্তি হতে বলেছি।’ তিনি আরো জানান, ‘বাসায় রেখে যে চিকিৎসাটা করা যায় না তা হাসপাতালে করা সম্ভব। কারণ হাসপাতালে সব ধরনের মেশিন রয়েছে। বঙ্গবন্ধু মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে সব ধরনের চিকিৎসা হয়। তিনি এখানে ভর্তি হলে একটি পুর্ণাঙ্গ চিকিৎসা পাবেন এবং আরাম বোধ করবেন।’

বেগম খালেদা জিয়ার রয়েছে বহুবিধ রোগ। একজন বয়স্ক মানুষের যত ধরনের রোগ থাকে তার প্রায় সবই রয়েছে। তার রয়েছে ডায়াবেটিস. উচ্চ রক্ত চাপ, চোখের সমস্যা। দীর্ঘদিন থেকে তিনি আথ্রাইটিসের রোগী। তার পায়ে রড লাগানো হয়েছে। স্বাভাবিক চলাফেরা তিনি করতে পারেন না। চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, একজন বয়স্ক মানুষ হিসেবে তিনি বিশেষ যতœ পাওয়ার অধিকারী। ইদানীং তার বাম হাতটি নিজে থেকে নড়াচড়া করতে পারছেন না অন্যের সহায়তা ছাড়া। অন্যের সাহায্য ছাড়া তিনি পাশ বদলও করতে পারেন না।

তার রয়েছে ব্যবসায়িক সমস্যা। কারাগারে তিনি অজ্ঞান হয়ে পড়েছিলেন। চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, বেগম খালেদা জিয়ার ব্যাপারটা মানবিক দিক থেকে দেখতে হবে। তিনি বর্তমানে আছেন নি:সঙ্গ পরিবেশে। এমন পরিবেশে যে কেউ যে কোনো সময় অসুস্থ হয়ে যেতে পারেন। উচ্চ ঝুঁকির একজন রোগী হিসেবে তাঁর অসুস্থতা লাঘব হচ্ছে না বলে আদালচ চত্বরে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

Facebook Comments
SHARE